দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে নেবে নতুন প্রজন্ম

হীরেন পণ্ডিত: তরুণ সমাজ, তারুণ্য একটি প্রাণশক্তি, যা অফুরন্ত সম্ভাবনা ও বর্ণিল স্বপ্ন দ্বারা পরিপূর্ণ বাংলাদেশের স্বপ্ন। তরুণদের ভাবনাগুলো হবে বাংলাদেশের ভাবনা, বাংলাদেশকে নিয়ে নতুন দিগন্ত উন্মোচন করার ভাবনা, তরুণ সমাজের আপাদমস্তক চিন্তাভাবনা হবে বাংলাদেশকে নিয়ে। সমস্ত অস্তিত্বে থাকবে বাংলাদেশ। তরুণদের কাজগুলো হবে বাংলাদেশের কাজ। সব স্বপ্ন দেখতে হবে বাংলাদেশকে নিয়ে।
বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে, সে বিষয়টি নতুন প্রজন্ম বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের অনুধাবন করতে হবে। এখন সময় এসেছে নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে তা এগিয়ে যেতে হবে। স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ চিহ্নিত করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শানিত একটি তরুণ প্রজন্ম গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবি এবং নতুন প্রজন্ম দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে। এর মাধ্যমে একটি গতিশীল জাতি গঠিত হবে এবং এগিয়ে যাবে নতুন প্রত্যাশায়। নতুন প্রজন্ম হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি আধুনিক প্রজন্ম, যারা বাস্তবায়ন করবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়ে তোলা। দেশকে মুক্ত করার চেতনা ছিল বঙ্গবন্ধুর। আজকের প্রজন্মকে সেই চেতনায় দেশ গড়তে হবে। এগিয়ে যেতে হবে। স্বাধীনতার এতগুলো বছর পেরিয়ে গেলেও কেন দুর্নীতিমুক্ত হতে পারব না। আজো দুর্নীতি আমাদের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে আছে। আমাদের বীরদের রক্তের কথা, স্বপ্নের কথা। তাদের স্বপ্নই আজকের এ বাংলাদেশ। পাশাপাশি এ দেশের স্বাধীনতায় কারা বিরোধিতাকারীদের করেছিল তাদের চেনাতে হবে। আর এর উপায় হলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশ গড়ার অঙ্গীকার করা। আমাদের নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা জানাতে হবে। তাদের বোঝাতে হবে। এ দেশ সোনার বাংলা গড়তে চেয়েছিলেন আমাদের জাতির জনক। তোমরা তার আদর্শ বুকে নিয়ে দেশ গঠনে একত্রিত হও। আমরা আজো মুক্তিযুদ্ধের সঠিক চেতনা তরুণ সমাজের কাছে পৌঁছাতে পারিনি সঠিকভাবে। এটা আমাদের ব্যর্থতা। ৩০ লাখ বাঙালির রক্তের বিনিময়ে পাওয়া এ স্বাধীনতার সঠিক ব্যবহার আমরা আজো করতে পারিনি অথবা পারছি না।
আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় শুরু থেকেই বিভিন্ন শ্রেণিতে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ঘটনা বর্ণনা করে সাজানো হয়েছে। এসব পড়ে ছাত্রছাত্রীরা মুক্তিযুদ্ধের সম্পর্কে কিছুটা জানতে পারছে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের মতো একটি বিষয়কে কেবল একটি অধ্যায়ে বোঝানো সম্ভব নয়। আবার পাঠ্যবইয়ের সূচিও সীমাবদ্ধ। তা ছাড়া পাঠ্যবইয়ের ইতিহাসও বহুবার পাল্টানোর চেষ্টা করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সঠিক তথ্য ঢেকে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে। তবে লাভের লাভ কিছুই হয়নি। সত্যি কখনো চাপা থাকে না। তা ঠিক বেরিয়ে এসেছে। সেসব কথাই তাদের বলতে হবে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা প্রত্যেক ছাত্রছাত্রীকে বিস্তারিতভাবে জানাতে হবে। সঠিক তথ্যটা তাদের দিতে হবে। কোনো বিভ্রান্তি রাখা যাবে না। সেটা পারিবারিকভাবে না হলে ভিন্ন উদ্যোগে জানাতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগ আর যুদ্ধের লক্ষ্য, স্বাধীন দেশের প্রতি দায়িত্ব-কর্তব্য- এসব বোঝাতে হবে। কোনটা স্বাধীনতার চেতনা আর কোনটা স্বাধীনতার চেতনা নয়, তার মধ্যে পার্থক্য স্পষ্ট করে তুলে ধরতে হবে। কারণ আজকের শিশু, তরুণ যুবারাই আগামীর ভবিষ্যৎ।
শিক্ষক যদি ক্লাসে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন ঘটনাকে কোমলমতি শিশুদের শোনাতে পারে, এ জাতির বীরত্বের ইতিহাস বলতে পারে, তাহলে সবচেয়ে ভালো হয়। এর ফলে ক্লাসের মনোযোগও বৃদ্ধি পাবে আবার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে পারবে। কারণ ছোট থেকেই যদি তাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়া যায়, তাহলে বড় হয়ে তারা কোনো অন্যায় করতে গেলে অন্তত ক্লাসে বলা শিক্ষকের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা মনে পড়বে। সবার যদি মনে নাও পড়ে সমস্যা নেই, কয়েকজনেরও যদি মানসিকতায় পরিবর্তন আনা যায়, তা হলেই আমাদের সার্থকতা। পরিবর্তন একদিনে আনা সম্ভব নয়। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল একটা দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়া। অসাম্প্রদায়িক চেতনা গড়া। একটা বৈষম্যহীন সমাজব্যবস্থা গড়ে তোলা। মুক্তিযোদ্ধারা একটি স্বাধীন দেশের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন একটি সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য। এসব কিছুই তাদের বোঝাতে হবে, জানাতে হবে। বর্বরতম গণহত্যার ধ্বংসাবশেষ থেকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের জন্ম হওয়ায়, কাউকে যেন দেশের মাটিতে তার ধর্মের কারণে বঞ্চনার শিকার হতে না হয়- এটি ছিল প্রত্যেক মুক্তিযোদ্ধার গণতন্ত্র ও সাম্যের প্রতি দৃঢ় প্রতিশ্রæতির পাশাপাশি আরো একটি সংকল্প, সম্ভবত আমরা সেই অঙ্গীকার পূরণে ব্যর্থ হয়েছি।
বাংলাদেশ গঠনের সময় ধর্মনিরপেক্ষতা অন্যতম প্রধান স্তম্ভ হিসেবে বিবেচিত হয়েছে এবং এটি আমাদের মুক্তি সংগ্রামের গভীরে প্রোথিত একটি বিশ্বাস। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড এবং সামরিক বাহিনীর ক্ষমতা দখলের মাধ্যমে ধর্মনিরপেক্ষতার ওপর একটি বড় আকারের আক্রমণ আসে। এসব ঘটনার প্রেক্ষাপটে সংবিধানে বিভিন্ন ধরনের সংশোধনী এবং ধর্মনিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিত করে এ রকম সাংবিধানিক ধারাগুলোকে ধীরে ধীরে গুরুত্বহীন করে দেয়া হয়। আজকের দিনের সবচেয়ে বড় সংকট, বাংলাদেশের সব গৌরবময় অর্জন ও স্বাধীনতা সংগ্রামের তাৎপর্য গভীরভাবে অনুধাবন করে ১৯৭১ সালকে নতুনভাবে উপলব্ধি করতে হবে। আমরা আমাদের সমাজের একটি মৌলিক সংস্কারের জন্য সংগ্রাম করেছি, যা একাধারে সব ধরনের পশ্চাৎপদতা, ঘৃণা, অক্ষমতা ও সংকীর্ণ মানসিকতা থেকে মুক্তি দেবে এবং অন্যদিকে সব ধরনের দারিদ্র্য ও বৈষম্য থেকে মুক্তি দেবে।
সামাজিক বিচ্ছিন্নতার বিষয়টিও দুর্ভাগ্যজনকভাবে সত্য। আমরা সম্ভবত সামাজিক সমস্যাগুলোকে নিজেদের কাঁধে নিয়ে সেগুলো সমাধানের উদ্যোগ নিতে আর ইচ্ছুক নই। সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের অভাবের বিষয়ে আমাদের গভীরভাবে এবং বিস্তৃৃত পরিসরে চিন্তা করতে হবে এবং বুঝতে হবে এখানে কী ঘটেছে। পাকিস্তানের আধিপত্য ও তাদের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে আমাদের অন্যতম অস্ত্র ছিল সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। এ ক্ষেত্রে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, গ্রাম পর্যায়ে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড প্রায় উধাও হয়ে যাওয়ার ব্যাপারটি। এ ক্ষেত্রে আমরা সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় আয়োজিত অনুষ্ঠানের কথা বলছি না, বরং যে অনুষ্ঠানগুলো মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে আয়োজিত হতো, সেসব সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের অনুপস্থিতি আমাদের তরুণ সমাজকে তাদের ঐতিহ্য, নিজস্বতা ও গর্বের বিষয়গুলো থেকে বিচ্ছিন্ন করছে এবং ফলে তৈরি হওয়া শূন্যস্থান পূর্ণ হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের অশুভ শক্তির প্রভাব দিয়ে।
আমরা আজ যে সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছি, তা মোকাবিলা করতে হলে জনমানুষের ভেতরে আরো সংহতি প্রয়োজন, বিশেষ করে রাজনৈতিক দল, সাংস্কৃতিক সংগঠন, তরুণ, সুশীল সমাজ, এনজিও, গণমাধ্যম এবং সব বিশ্বাস ও মতাদর্শের মানুষের মধ্যে। দেশজুড়ে একটি গণসচেতনতামূলক প্রচার চালানো দরকার। যেখানে বিস্তৃত পরিসরে জানানো হবে, কেন বাংলাদেশের জন্ম হয়েছিল এবং কী কারণে লাখ লাখ মানুষ ১৯৭১ সালে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। বাংলাদেশের বর্তমান তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি; কিন্তু শুনেছে বা বইয়ে পড়েছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। এখন কথা হলো, তারা যেখান থেকে পড়েছে সেগুলো কতটুকু সঠিক, তাও দেখার বিষয়। আমাদের পূর্ববর্তী প্রজন্ম কি সঠিকভাবে আমাদের সামনে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরেছেন? নাকি আমরা তরুণ প্রজন্মের সবাইকে বিকৃত ইতিহাস জানিয়ে বিভ্রান্ত করেছি? এ বিষয়ে তরুণদের সজাগ দৃষ্টি রাখা উচিত। তরুণদের বা নতুন প্রজন্মের জানা উচিত সঠিক ইতিহাস।
আজকের তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করার জন্য দরকার মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তাদের সামনে উপস্থাপন। সঠিক তথ্যটি তাদের সামনে তুলে ধরা। মুক্তিযুদ্ধের সময় একটি জাতিকে চিরতরে নিশ্চিহ্ন করার জন্য যত ধরনের ব্যবস্থা নেয়া দরকার সব ধরনের ব্যবস্থাই নিয়েছিল পাকিস্তানিরা। এ কারণেই তারা দেশের শ্রমজীবী, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিকদের হত্যা করেছিল। যারা বাঙালিকে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল, বাঙালি জাতি কীভাবে তাদের পরাজিত করেছিল, তার সঠিক ইতিহাস তরুণ প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা সবারই দায়িত্ব ও কর্তব্য।
ইতিহাস বিকৃতি একটি জাতিকে ধ্বংস আর বিভ্রান্ত করারই নামান্তর। এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠা করার জন্য নতুন প্রজন্মের পাশে থাকতে হবে এবং পাশে দাঁড়াতে হবে বিজ্ঞ অভিভাবকদের। তারুণ্য একটি প্রাণশক্তি, যা অফুরন্ত সম্ভাবনা ও বর্ণিল স্বপ্ন দ্বারা উজ্জীবিত থাকে। একটি স্ফুলিঙ্গ তারুণ্যকে উদ্দীপ্ত শিখায় পরিণত করতে পারে, যা হয়ে উঠতে পারে নক্ষত্রের মতো সমুজ্জ্বল। তরুণদের স্বপ্নগুলো হবে বাংলাদেশের স্বপ্ন, ভাবনাগুলো হবে বাংলাদেশের ভাবনা, কাজগুলো হবে বাংলাদেশের কাজ। এতেই গড়ে উঠবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা, বাস্তবায়িত হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।

হীরেন পণ্ডিত : কলাম লেখক ও রিসার্চ ফেলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *